১০০ গ্রামের মিষ্টি কুমড়ায় ১৮ কিলোক্যালরি, ১.৪ গ্রাম প্রোটিন, ১.৩ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ২.৪ গ্রাম ফাইবার, ৫২ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ০.৭১ মিলিগ্রাম আয়রন, ১০ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম, ১৬ মিলিগ্রাম ফসফরাস, ৩৪৯ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম, ৮ মিলিগ্রাম সোডিয়াম, ০.১১ মিলিগ্রাম জিংক, ০.২১ মিলিগ্রাম কপার, ৩৬৯ মাইক্রোগ্রাম ভিটামিন-এ, ৪৪৩০ মাইক্রোগ্রাম বিটা ক্যারোটিন, ১৬ মাইক্রোগ্রাম ফোলেট ও ২১.১ মাইক্রোগ্রাম ভিটামিন-সি পাওয়া যায়।

স্বাস্থ্যগত উপকারিতা

* নিয়মিত মিষ্টি কুমড়া খেলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকার কারণে হজমে সহায়তা করে, নিয়মিত এটি খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে দূরে থাকা যায়।

* মিষ্টি কুমড়া অ্যান্টি-অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ, এটি নিয়মিত গ্রহণে বেশ কিছু মারাত্মক রোগ যেমন- ক্যান্সার, ডায়াবেটিস ও হৃদরোগ থেকে দূরে থাকা যায়।

* মিষ্টি কুমড়ায় থাকা ভিটামিন ‘এ’ ও ‘সি’ ত্বকের যত্নে অনন্য। নিয়মিত এই সবজি খেলে ত্বক থাকে কোমল ও মসৃণ।

* ম্যাগনেসিয়াম পাওয়া যায় মিষ্টি কুমড়া থেকে। এই উপাদান স্ট্রেস কমাতে সাহায্য করে।

* পটাসিয়ামের উৎস এই সবজি নিয়মিত খেলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। ফলে দূরে থাকা যায় কার্ডিওভাস্কুলার ডিজিজ থেকে।

* নিয়মিত এই সবজি গ্রহণে লিভার ভালো থাকে।

মিষ্টি কুমড়া বীজের পুষ্টিগুণ

১০০ গ্রাম মিষ্টি কুমড়ার বিচিতে ২৪০০ কিলোক্যালরি, ২৫.১ গ্রাম প্রোটিন, ১০.৬ গ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ৪৭.৩ গ্রাম ফ্যাট, ৬ গ্রাম ফাইবার, ৪৫ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ৮.১ মিলিগ্রাম আয়রন, ৪৩১ মিলিগ্রাম ম্যাগনেসিয়াম, ১০৪২ মিলিগ্রাম ফসফরাস, ৮১৫ মিলিগ্রাম পটাসিয়াম, ১৩ মিলিগ্রাম সোডিয়াম, ৫.৮৭ মিলিগ্রাম জিংক, ০.৬২ মিলিগ্রাম কপার, ১ মাইক্রোগ্রাম ভিটামিন-এ, ১০ মাইক্রোগ্রাম বিটা ক্যারোটিন, ৫৮ মাইক্রোগ্রাম ফোলেট ও ১.৫ মাইক্রোগ্রাম ভিটামিন-সি, নায়াসিন ১০.৪ মাইক্রোগ্রাম পাওয়া যায়।

স্বাস্থ্যগত উপকারিতা

* রক্তশূন্যতা ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

* হার্ট ভালো রাখতে সাহায্য করে।

* মিষ্টি কুমড়ার বীজ শরীরে নিয়মিত ইনসুলিন সরবরাহ করে এবং ক্ষতিকর অক্সিডেটিভ চাপ কমায়।

* পাকস্থলী, ফুসফুস, ব্রেস্ট, কোলন ও প্রোস্টেট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। মিষ্টি কুমড়ার বীজ থেকে উৎপন্ন তেল প্রোস্টেট গ্রন্থির টিউমার নিয়ন্ত্রণে সক্ষম।

* ম্যাগনেসিয়াম একটি খনিজ পদার্থ, যা শরীরের বিপাকক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ, প্রোটিন ও নিউক্লিক এসিড উৎপাদনে অপরিহার্য। এ ছাড়া শরীরের হরমোনগুলোর কার্যাবলি নিয়ন্ত্রণ, হার্ট সচল, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ, দৈহিক বৃদ্ধি, হাড় মজবুত, স্নায়ুতন্ত্রের খবরাখবর আদান-প্রদানগুলো অসংখ্য জৈবিক কার্যাবলি নিয়ন্ত্রণ করে। তাই ম্যাগনেসিয়ামের খুব সাশ্রয়ী ও সহজলভ্য উপাদান হলো মিষ্টি কুমড়ার বীজ।

_________________________________________________________________________

 

Loading